ইতিহাসের সাক্ষী ফলতার কেল্লা

0
2125
ইতিহাসের সাক্ষী ফলতার কেল্লা

ইতিহাসের সাক্ষী ফলতার কেল্লা

ইতিহাসের সাক্ষী ফলতার কেল্লা

শক্তিপুরকাইত

ইতিহাস বুকে নিয়ে আজও দাঁড়িয়ে আছে ফলতার কেল্লা। এই কেল্লাটি তৈ্রি করেছিল ডাচ্রা। ডাচদের অনেক আগে এসেছিল পর্তুগীজরা। তখন ফলতার বাজার ছিল খুব জমজমাট। ফলতার তেঁতুলতলায় ছিল বিশাল বারুদ কারখানা। সেই বারুদ চলে যেত ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে। ১৬০২ খ্রীষ্টাব্দে ওলন্দাজরা ইউনাইটেড ইস্টইন্ডিয়া কোম্পানি নামে বাণিজ্য শুরু করে। সেই সময় ফলতা থেকে তারা রপ্তানি করত নীল, ধান, সোনা, বস্ত্রাদি প্রভৃতি। আজ ইতিহাসের সাক্ষী ফলতার কেল্লা ধবংসের মুখে। পড়ে আছে তার ভগ্নাবশেষ। কেল্লার চারধারে ছিল জলভর্তি পরিখা, যা আজও চোখে পড়ে। কেল্লার প্রবেশ পথে ছিল একটি ছোট সেতু। ওই সেতুটি দুটি মোটা শিকল দিয়ে ওঠানো-নামানো হত। শত্রু আক্রমন করায় এইশিকল দিয়ে সেতুটি তুলে নেওয়া যেত। বর্তমানে হয়েছে সেই পথে পাকা রাস্তা। প্রবেশ পথে দেখা যাবে কতকগুলো গর্ত। এই গর্তগুলো রাখা হয়েছিল যাতে সহজে লুকিয়ে থেকে সৈ্নিকেরা বন্ধুক চালাতে পারে। কেল্লার মাঝখানে আছে উঁচু একটা বড়স্তম্ভ। তার গা দিয়ে উঠে গেছে লোহার সিঁড়ি। এই স্তম্ভের উপর থেকে দূরাগত শত্রুর উপস্থিতি দেখা যেত। স্তম্ভের চারপাশে এখনো ছড়িয়ে আছে মাটির নিচের কতকগুলো ঘর। ঘরগুলো কংক্রিটের ছাদ ৩-৪ফুট পুরু। এই কেল্লা আয়তন প্রায় ৩০ একর। কেল্লার ব্যবহৃত কামানটি ১৯৬০ সালে ফলতা থানায় নিয়ে এসে রাখা হয়। তাতে অস্পষ্ট অক্ষরে লেখা আছে এই কথাগুলি—

“Hare for better preservation a relic dated 1756 from ruins of Fort Falta ,By ShriHiranmaypramanik O.C Falta P.S 23th January 1960 .’’

একসময় ১৭৫৬ খ্রীস্টাব্দে২০শে জুন বাংলার নবাব সিরাজদৌল্লা ইংরেজ সাহেব গভর্নর ড্রেক কে আক্রমন করলে , নবাবের ভয়ে গভর্ণর ড্রেকসাহেব পালিয়ে আসেন ফলতায়। ফলতায় বসে ড্রেক কলকাতা দখলের পরিকল্পনা ও পলাশী যুদ্ধের ষড়যন্ত্র করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here