নৃত্যায়নের মাধ্যমে দশমহাবিদ্যার আরাধনায় ব্রতী ১১ জন রূপান্তরকামী নারী

0
905
নৃত্যায়নের মাধ্যমে দশমহাবিদ্যার আরাধনায় ব্রতী ১১ জন রূপান্তরকামী নারী

নৃত্যায়নের মাধ্যমে দশমহাবিদ্যার আরাধনায় ব্রতী ১১ জন রূপান্তরকামী নারী

নৃত্যায়নের মাধ্যমে দশমহাবিদ্যার আরাধনায় ব্রতী ১১ জন রূপান্তরকামী নারী

ভারতবর্ষ সেই দেশ যেখানে নৃত্যও একটি মাধ্যম ঈশ্বরের আরাধনার। নৃত্যের দেবতা স্বয়ং নটরাজ যিনি আবার অর্ধনারীশ্বর। ফলত অর্ধনারীশ্বর তথা রূপান্তরকামী নারীরা তাদের আরাধ্য দেবতাকে তুষ্ট করতে নৃত্যকেই বেছে নেবেন তা বলার অপেক্ষা রাখে না। যুগে যুগে রূপান্তরকামীরা তাই করে এসেছেন। তবে এই প্রথম কলকাতা তথা ভারতবর্ষে দেবী দুর্গা ও দশমহাবিদ্যার আরাধনা করতে নৃত্যানুষ্ঠান করতে চলেছেন রূপান্তরকামীরা। আর এমন অভিনব ভাবনা যিনি ভেবেছেন তিনি হলেন বিখ্যাত রূপান্তরকামী নৃত্যশিল্পী মেঘ সায়ন্তন ঘোষ। যিনি বছর কয়েক আগে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘চিত্রাঙ্গদা’ নৃত্যনাট্যকে এক অন্য ভাবনায় নৃত্যস্থ করে কলকাতায় সাড়া ফেলে দিয়েছিলেন। চণ্ডালিকার ক্ষেত্রেও তেমনি নিজ স্বতন্ত্র ভাবনার পরচয় দিয়েছেন। আর এবার দশমহাবিদ্যাকে উপস্থাপন করতে চলেছেন নারীরূপেন সংস্থিতা রূপে। যার ক্যাচলাইন অন্দরে অন্তরে ও রূপান্তরে। এই অভিনব নৃত্যানুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১২ই সেপ্টেম্বর সল্টলেকের ওকাকুরা রবীন্দ্রভবনে। সমগ্র অনুষ্ঠান রূপায়নে সায়ন্তনের নৃত্যগোষ্ঠী রুদ্রপলাশ ও আরও ১০ জন বিশিষ্ট নৃত্যশিল্পী যাঁরা প্রত্যেকেই রূপান্তরকামী নারী। তাঁরা হলেন অমিত মন মুখার্জী, অভিজিৎ মালব, পাখি চ্যাটার্জী, সব্যসাচী দাস, আকাশ পাল, রমেশ মন্ডল, শশী হাজারী, অনিমেষ সরকার, প্রীতম মন্ডল ও সন্দীপন ছেত্রী। আর দুর্গার ভূমিকায় স্বয়ং মেঘ সায়ন্তন ঘোষ। এখন কালী, তারা, ষোড়শী, ভৈরবী, ভুবনেশ্বরী, ছিন্নমস্তা, ধূমাবতী, বগলা, মাতঙ্গী ও কমলাকামিনী এই দশমহাশক্তির প্রতিটি রূপে নারীত্বের কোমলতা যেমন আছে, তেমনই আছে পৌরুষের তেজ। একদিকে তাঁরা সৌন্দর্য্যের সুষমায় সুশোভিত, অন্যদিকে মহাপ্রলয়ংকারী। এ হেন রূপকে নৃত্যায়নের মাধ্যমে উপস্থাপনের যে চ্যালেঞ্জ এই ১১ জন রূপান্তরকামী নারী নিয়েছেন তা কতখানি সাফল্য পায়।

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা, ২৪/০৮/২০১৭

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here