রূপান্তরকামী নারীরাও ধর্ষিতা হয়! কিন্তু মানতে চায় না আমার দেশ

0
2410

 রূপান্তরকামী নারীরাও ধর্ষিতা হয়! কিন্তু মানতে চায় না আমার দেশ

আমাদের দেশে কোন নারী যখনই ধর্ষিতা হয় এবং তা মিডিয়াই উঠে আসে তখনই ওঠে প্রতিবাদের ঝড়। উঠুক। ওঠাটা জরুরী। কিন্তু যখন এক রূপান্তরকামী নারী ধর্ষিতা হয় তখন তা কেন কেউ মানতে চায় না? এ প্রশ্ন ধর্ষিতা হওয়া এক রূপান্তরকামী নারীর। তিনি আরও বলেন, মানতে তো চায় না, এমনকি কিছু শুনতেও চায় না। সারা শরীরে ক্ষত নিয়ে যখন নিজের মায়ের কাছে বলতে সেকথা বলতে গিয়েছিলাম, তখন মা বলেছিল, একদম বাজে কথা বলবি না, তুই কি সত্যিকারের মেয়ে নাকি যে কেউ তোকে ধর্ষন করবে? নিজের মা-ই যখন বিশ্বাস করল না, তখন আর কে বিশ্বাস করবে বলুন। তাই আজ পর্যন্ত আর কাউকেই সে কথা বলিনি।

“একদম বাজে কথা বলবি না, তুই কি সত্যিকারের মেয়ে নাকি যে কেউ তোকে ধর্ষন করবে?” 

আপনাকে বলছি। কারণ দেখলাম, আপনাদের পত্রিকায় রূপান্তরকামীরা নিজের মনের কথা বলতে পারে। তাই বলছি। নইলে জানি,  ঘটনা ঘটে যাওয়ার এক বছর পর বলে কোন লাভ নেই। প্রমাণও নেই আমার কাছে। তবে বিশ্বাস করুন আমি একবর্ণ মিথ্যে বলছি না। আমার ধর্ষক কি ছিল জানলে অবাক হয়ে যাবেন।  আমি তখন আমার রূপান্তরকামী সত্ত্বা অনুভব করছি শরীরে। কিন্তু কাউকে মন খুলে বলতে পারছি না। কিন্তু আমার স্কুলের বাংলা স্যার আমাকে দেখে সব বুঝতে পারেন। আমি তখন ক্লাস টেনে পড়ি। তো একদিন ক্লাসের  ফাঁকে তিনি আমাকে ডেকে তাঁর বাড়িতে যেতে বলেন। তার আগে তিনি আমার সত্ত্বা সম্পর্কে এমন কিছু কথা বলেন যা শুনে আমার খুব ভালো লাগে। তাই ছুটে গিয়েছিলাম স্যারের বাড়ি।

তারপরেই ঘটে সেই ভয়ঙ্কর ঘটনা। স্যার নিজের বাড়িতে আমাকে ধর্ষণ করেন! করার পর আমাকে ফেল করিয়ে দেওয়ার ভয়ও দেখিয়েছিলেন। আমি ভয়ে কাউকে বলি নি। শুধু মায়ের কাছে বলেছিলাম। বলামাত্রই মা মেরেছিল। এমনকি মা আমার সঙ্গে কথা বলাও বন্ধ করে দেয়।

এভাবেই কেটে গেল একটা বছর। ধীরে ধীরে শরীরের ক্ষত শুকিয়েছে। কিন্তু মনের ভয় এখনও দূর হয় নি। মাঝে মাঝেই শিউরে উঠি। আর ভাবি আমার রূপান্তরকামী নারীসত্ত্বা তো দিনে দিনে আরও প্রকট হচ্ছে। তার মানে আমাকে কি আরও বহুবার ধর্ষিতা হতে হবে? যার স্বীকৃতি থাকবে না আমার দেশের কোথাও!

বুবুন চক্রবর্ত্তী , কলকাতা। ছবি সৌজন্যে- ইন্টারনেট

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here