অ্যাক্টিভিস্ট তিস্তা দাসের উদ্যোগে রাজ্যে প্রথম ট্রান্সজেন্ডার মেডিকো ও লিগ্যাল কেয়ার

0
939
অনুষ্ঠানের একটি বিশেষ মুহুর্ত

অ্যাক্টিভিস্ট তিস্তা দাসের উদ্যোগে রাজ্যে প্রথম ট্রান্সজেন্ডার মেডিকো ও লিগ্যাল কেয়ার

অনুষ্ঠানের একটি বিশেষ মুহুর্ত 

অবকাশে সঞ্জয়ের প্রতিবেদন ২৫/০১/২০১৮  

২০১৪ সালে সুপ্রিম কোর্টের ঐতিহাসিক রায় ঘোষণার পর আমাদের রাজ্যের প্রায় সব ট্রান্সজেন্ডার আশায় বুক বেঁধেছিলেন। শরীর আর মনের দ্বন্দ্ব নিয়ে প্রতিনিয়ত দিন কাটানোর যন্ত্রনা থেকে মুক্তি দিতে সরকার নিশ্চয় কিছু একটা করবেই। সেই আশা হাজারগুন বাড়িয়ে দিয়েছিল যখন প্রতিষ্ঠিত হল ওয়েস্টবেঙ্গল ট্রান্সজেন্ডার ডেভলপমেন্ট বোর্ড।

কিন্তু তারপর কেটে গেল চার চারটে বছর। আর এই চার বছরে ট্রান্সজেন্ডার বোর্ড শুধু মিটিং এর মিটিং করেছে। দৃষ্টান্তমূলক কোন কাজ ট্রান্সজেন্ডার মানুষদের জন্য করে দেখাতে পারে নি। যেখানে কেরালা সরকারীভাবে ইতিমধ্যেই ট্রান্সজেন্ডার মেডিক্লিনিক করে ফেলেছে। অন্যান্য রাজ্যও নানা উদ্যোগ নিয়েছে। ব্যতিক্রম শুধু আমাদের রাজ্য।

ঠিক এ হেন সময়ে  ট্রান্সজেন্ডার মানুষদের পাশে দাঁড়াতে, সাথে নিয়ে পথ চলতে ট্রান্সেজন্ডার অ্যাক্টিভিস্ট তথা অভিনেত্রী তিস্তা দাস প্রায় একক উদ্যোগে গড়ে তুললেন রাজ্যের প্রথম ট্রান্সজেন্ডার মেডিকো ও লিগ্যাল কেয়ার যার পোশাকী নাম এসআরএস সলিউশানস্‌ কলকাতা। সেন্টারের নবনির্মিত ভবনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হল গতকাল। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন শল্য চিকিৎসক ডঃ প্রবীর জস্‌, মনোবিদ ডঃ সুপর্না দাস, ডঃ শ্রীপর্না মিত্র, আইনজীবী অঙ্কন বিশ্বাস, ট্রান্সজেন্ডার ডেপলপমেন্ট বোর্ডের অন্যতম সদস্যা তথা অলবেঙ্গল ট্রান্সজেন্ডার/হিজড়া অ্যাসোসিয়েশানের কর্ণধার রঞ্জিতা সিনহা, ট্রান্সজেন্ডার গবেষক ডঃ লোপামুদ্রা সেনগুপ্ত, ইটালি থেকে আগত মিঃ অ্যালেক্স ও অ্যান্ডিয়া যারা ভারতীয় ট্রান্সজেন্ডার মডেলদের নিয়ে বিশেষ প্রোজেক্ট করছেন এবং বিশিষ্ট আলোকচিত্র শিল্পী সোমেন দাস বাচিকশিল্পী নাতাশা দাশগুপ্ত, অংকনশিল্পী জ্যোতিপ্রকাশ রায়চৌধুরী,  আগরপাড়া পৌরসভার স্থানীয় কাউন্সিলার অনুপম দত্ত প্রমুখ।

ডকুমেন্টারি প্রদর্শনীর একটি মুহুর্ত

এক অন্যধারার আলাপচারিতার মধ্যদিয়ে সমগ্র অনুষ্ঠানটি পরিচালিত হয়। আর তা সুচারুভাবে সঞ্চালনা করেন ট্রান্সজেন্ডার উইম্যান হিসাবে রাজ্যের প্রথম নার্স হতে চলা দেবদত্তা বিশ্বাস। অনুষ্ঠানের শেষপর্বে সোহিনী দাশগুপ্ত পরিচালিত ডকুমেন্টারি ‘আই কুড নট ইয়োর সন, মম্‌’ প্রদর্শিত হয় এবং রূপান্তরিত নারী সঞ্জনা দেবনাথের নৃত্যের মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা হয়।

অনুষ্ঠান শেষে তিস্তা দাসের একান্তে কথা বলে জানা যায়, তিনি ন’বছর আগে এসআরএস সলিউশানস্‌ প্রতিষ্ঠিত করে কাজ শুরু করেছিলেন। সেই কাজেরই এক বৃহত্তর রূপ আজকের এই ট্রান্সজেন্ডার মেডিকো ও লিগ্যাল কেয়ার। এমন ভাবনার কারণ প্রসঙ্গে তিনি জানান, বহু ট্রান্সজেন্ডার বন্ধু নিজ কাঙ্খিত শরীর পেতে চান। কিন্তু এই শরীর পাওয়াটা জাস্ট এক দুদিনে একটা দুটো সার্জারি করেই পাওয়া যায় না। এর জন্য একটা দীর্ঘদিনের সুপরিকল্পিত ও নির্দেশিত পথে জীবনযাপন করতে হয়। তারপরে হয় সার্জারি। এছাড়াও কিছু সাইকোলজিক্যাল দিক আছে,  কিছু আইনি দিক আছে। আর এতকিছু একজন ট্রান্সেজন্ডার বন্ধুকে একছাতার তলায় এনে দেওয়ার উদ্দেশ্যেই এই সেন্টার। সব মিলিয়ে বলা যেতে পারে, এসআরএস সলিউশানস্‌ ট্রান্সজেন্ডার বন্ধুদের জীবনের সমস্যার এক সহজ সরল সলিউশানস্‌ নিয়ে এসেছে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here