শরীরের ভাঁজে ভাঁজে মাদকতা ছুঁয়ে দেখেছিলে, মেতেছিলে শৃঙ্গার রসে।কার কথা বললেন পলাশ বন?

0
543
শিল্পী- অনুপম বিশ্বাস

শরীরের ভাঁজে ভাঁজে মাদকতা ছুঁয়ে দেখেছিলে, মেতেছিলে শৃঙ্গার রসে।কার কথা বললেন পলাশ বন?

সাহিত্যিক পলাশ বন

রাইয়ের অনুরাগে মুগ্ধ তুমি শ্যাম, রাই তোমার প্রেমে মত্ত। মীরাবাঈ তোমার প্রেমে মুগ্ধ, সংসারহীন। তবে রাসের রাতের গোপিনীগনের একজনকেও মনে রেখেছিলে সখা? যখন তুমি রাইয়ের ক্লান্তির অগোচরে সখীগনের কাছে নিজেকে বিলিয়েছিলে, যখন তুমি রাই নয় অন্য শরীরে ক্ষণিকের সুখে সুখি, যখন কোনো এক ব্রজবালার রন্ধ্রে রন্ধ্রে প্রেম জাগিয়ে তুলেছিলে সেই ‘ক্ষণিক’ টা কি মনে রেখেছিলে সখা? কুব্জাকেও তুমি বঞ্চিত করোনি, মেখে নিয়েছ চন্দন সুবাস। রুক্ষিণীর সুখশয্যায় মনে রেখেছো কি তাকে?

 

শিল্পী- অনুপম বিশ্বাস

শুধু রাই নয়, তোমার বিরহে আরো কোনো ব্রজকুলবালা কেঁদেছিল বহু রাত, তবু রাইকে দিয়েছিল ভর্সা, অপ্রয়োজনীয় আশ্বাস বাক্য, ভেঙে পড়েছিল রন্ধ্রে রন্ধ্রে। আর রাইকে লিখে রেখেছিল বহু কাব্যকার, অনামী ব্রজবালাটিও তোমার বাঁশির সুরে ভেসে গিয়েছিল, শেষ হয়েছিল, শুধু তুমিই চোখের দিকে তাকিয়ে দেখোনি। শরীরের ভাঁজে ভাঁজে মাদকতা ছুঁয়ে দেখেছিলে, মেতেছিলে শৃঙ্গার রসে। আজ যমুনার কুলে বসে সে কাঁদেনা আর, কোনো গণ্ধর্ব বালক তার চোখে প্রেম খুঁজে পায়, অনামী, বেনামী প্রেম, আর তুমি? আজ জাম্বোবতীর পাশে থেকে রুক্ষিণীকে উপেক্ষা করো প্রতি রাতে, একবার বলো সখা কোন একজনকে তুমি সত্যি ভালোবেসেছিলে?

(বিষয় বস্তু কাল্পনিক, ধর্ম নয় এখানে প্রেমটাই প্রাধান্য দিতে চেয়েছি। কুব্জার অংশটুকু ‘ব্রহ্ম বৈবর্ত্য পূরাণ’ অনুযায়ী লেখা।) কভারের ছবি- শিল্পী অনুপম বিশ্বাস

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here