একই অঙ্গে পুরুষ ও প্রকৃতি যাদের তারা গাইলেন জীবনের জয়গান মোহিত মৈত্র মঞ্চে

0
417
Click By Abakaashe sanjoy

একই অঙ্গে পুরুষ ও প্রকৃতি যাদের তারা গাইলেন জীবনের জয়গান মোহিত মৈত্র মঞ্চে

ছবি চপল ভাদুড়ী ও মনোরমা বাই Click By Abakaashe sanjoy

অবকাশে সঞ্জয়ঃ জীবিকা যতই হোক জীবনের প্রতিকূল, হৃদয়ে শিল্পস্বত্তা থাকলে তার বিকাশ ঘটবেই। সেকথায় আজ প্রমাণ করল পূর্ব বরিষা অলিন্দ ও দমদম ঐক্য। কথা ছিল পাইকপাড়ার মোহিত মৈত্র মঞ্চে  শ্রাবণের এক মিলনসন্ধ্যা উপহার দেবে। যে মিলনসন্ধ্যায় মিলিত হবেন যৌন সংখ্যালঘু, রূপান্তরকামী, সমকামী, হিজড়া, সমপ্রেমী সহ সকল স্তরের মানুষ। হলও তাই। আর এই সকলের সামনে  গীত হল জীবনের জয়গান। গাইলেন একই অঙ্গে পুরুষ ও প্রকৃতি যাদের সেই রূপান্তরকামী মানুষেরা। যে রূপান্তর কারও অন্তরে, কারও সাজসজ্জায়। কেউ বাস্তবের মাটিতে দাঁড়িয়ে, কেউবা শুধু মঞ্চেই। কিন্তু কোথাও না কোথাও সকলেরই রূপান্তর হয়েছে। কেননা সকলেরই যে একই অঙ্গে পুরুষ ও প্রকৃতি।

চপল ভাদুড়ীর যাজ্ঞসেনী নাট্যাংশের সংলাপ বলার একটি মুহুর্ত

কিন্তু দুর্ভাগ্যের যে সমাজের কাছে তারা এখনও প্রান্তিক, তবে আজ যেন সমাজকে বুঝিয়ে দিলেন বিহঙ্গ হয়ে ওড়ার জন্য প্রস্তুতি সারা হয়ে গিয়েছে। অলিন্দের পথনাটক ‘ওরে বিহঙ্গ’ তে সেই কথায় ধ্বনিত হল। সে কথাই মুক্তকন্ঠে মনে করিয়ে দিলেন আজকের অনুষ্ঠানের অন্যতম আকর্ষণ যাকে ঘিরে সেই চপল (রানী) ভাদুড়ী। তিনি জাজ্ঞসেনী নাট্যাংশের দ্রৌপদী রূপে সংলাপ বলতে বলতে যখন শ্রীকৃষ্ণকে বলছেন, যাও সখা তুমি সব ভুলে কৌরবদের কাছে সন্ধিপ্রস্তাব নিয়ে যাও… তখন কেন জানি না মনে হচ্ছিল এ প্রস্তাব নিয়ে যেন পুরুষোত্তম সমাজের কাছে যাচ্ছেন। আর কৌরব রূপী সমাজ ফিরিয়ে দিচ্ছেন সেই প্রস্তাব। তখন পান্ডব রূপী রূপান্তরকামী সমাজ বাধ্য হচ্ছেন নিজ অধিকার আদায়ের জন্য ধর্মযুদ্ধে অবতীর্ন হতে। সেই যুদ্ধের কথায় মনে করিয়ে দিলেন আজীবন জীবিকার জন্য হিজড়াবৃত্তি আর শিল্পের জন্য লোকসংস্কৃতির প্রাঙ্গণে থেকে যুদ্ধ করা মনোরমা (হিজড়া) বাই।

তবে এ অনুষ্ঠান শুধুই লড়াইয়ের শপথ গ্রহণ করেই থেমে যায় নি। উপহার দিয়েছেন তীব্র দাবদাহের পর শ্রাবণের বারিধারা ঝরতে শুরু হলে গহণ কুসুম কুঞ্জে যে নৃত্য শুরু হয় তার।

যাইহোক অনুষ্ঠানের সমাপ্তি হয়  অসম্ভব সুন্দর এক নাটক দিয়ে। আসানসোল চর্যাপদের নাটক লজ্জা যা আমাদের কাছে একাধারে বিষ্ময়ের, অন্যদিকে মুখোমুখি দাঁড় করার লজ্জার। চিন্তিত করে তোলে বিবেককে। সব মিলিয়ে সর্বাঙ্গসুন্দর এক মিলনসন্ধ্যায় গীত হল জীবনের জয়গান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here