তৃতীয়লিঙ্গের চারজন প্রতিনিধি এবার পাকিস্তানের জাতীয় নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছিলেন

0
296
ছবি সৌজন্যে Arthasuchak.com

তৃতীয়লিঙ্গের চারজন প্রতিনিধি এবার পাকিস্তানের জাতীয় নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছিলেন

ছবি সৌজন্যে Arthasuchak.com

নিজস্ব প্রতিবেদনঃ প্রায় এক দশক আগে দেশটির জাতীয় পরিচয়পত্রে তৃতীয়লিঙ্গকে স্বীকৃতি দেওয়া হয়। গতবছর থেকে পাসপোর্টেও তৃতীয়লিঙ্গ লেখার অনুমোদন দেয় সরকার। গত মে মাসে তৃতীয়লিঙ্গের মানুষদের বিরুদ্ধে বৈষম্য রোধে পাকিস্তানে একটি আইন পাশ হয়। তবুও তৃতীয়লিঙ্গের মানুষদের বিরুদ্ধে নৃশংসতা একেবারে বন্ধ হয় নি। বন্ধ হয় নি শারীরিক ও যৌন নিপীড়ন। আর এসব বন্ধ করতেই নায়াব আলি, নাদিম কাশিশরা এবার পাকিস্তানের জাতীয় নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছিলেন। বিবিসিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে, নায়াব আলি জানান, আমার আত্মীয়রাই আমার উপর শারীরিক ও যৌন নিপীড়ন করত। তাই বাধ্য হয়ে ১৩ বছর বয়সে ঘর ছাড়ি। কিন্তু শিকার হই অ্যাসিড হামলার। তবে  দমে না গিয়ে লড়াই চালিয়ে যায়। আর বিশ্বাস করি সেই লড়াইয়ে জয়ী হতে দরকার শিক্ষা। তাই শুরু করি পড়াশোনা। অর্জন করি, স্নাতক ডিগ্রি। এবং তারপরেই জাতীয় নির্বাচনে অংশ নিই।

সরকারের কাছে আবেদন নিবেদন করেও তো অধিকার আদায় করা যেত। তা না করে সরাসরি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করা কেন? এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, আমি বুঝতে পেরেছি, রাজনৈতিক শক্তি এবং পার্লামেন্টের অংশ না হয়ে আমরা আমাদের অধিকার অর্জন করতে পারব না। তাই এই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করা।

নায়াবদের এই আত্মবিশ্বাস, এভাবে মূলস্রোতে থেকে লড়াই করতে চাওয়া যে তাদের অধিকারের পথ সুগম করবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

সৌজন্যে purboposhimbd.news ও    Arthasuchak.com

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here