মেট্রোয় সমপ্রেমী যুবকদ্বয়ের আলিঙ্গণ। সেই দৃশ্যকে লজ্জার বলে পোস্ট জনৈক বীরেশ্বরের

0
629
স্ক্রিনশর্ট। বীরেশ্বর সেনগুপ্তের ওয়াল থেকে।

মেট্রোয় সমপ্রেমী যুবকদ্বয়ের আলিঙ্গণ। সেই দৃশ্যকে লজ্জার বলে পোস্ট জনৈক বীরেশ্বরের

স্ক্রিনশর্ট। বীরেশ্বর সেনগুপ্তের ওয়াল থেকে।

অবকাশে সঞ্জয়ঃ আবার মেট্রো। আবার আলিঙ্গণ। এবার শোভাবাজারের কাছে ( ভিডিও ক্লিপে ঐ স্টেশনের নাম শোনা যায় ) শুধু আলিঙ্গণ রত কাপেল এবার নারী-পুরুষ নন। সমপ্রেমী যুবকদ্বয়। তবে নীতি পুলিশগিরিটা আগের মতোই আছে। এবার মারধোর নয়। সেই কাপেলের আলিঙ্গনরত ভিডিও গোপনে তুলে ফেসবুকে পোস্ট করেছেন যা আগেরবার নীতিপুলিশি দেখিয়ে কাপেলকে মারধোর করার চেয়ে কম ভয়ঙ্কর নয়। কেননা এক্ষেত্রে ঐ কাপেলকে গণলজ্জার মুখে ফেলেছেন ভিডিও পোস্টকারী জনৈক বীরেশ্বর সেনগুপ্ত। শুধু পোস্ট করেই তিনি ক্ষান্ত হন নি। পোস্টের টাইটেলে তিনি লিখেছেন, Shame_ Hug_ In_ Kolkata Metro কলকাতা মেট্রোতে আবার আলিঙ্গণ। এবং তা লজ্জার আলিঙ্গণ। হ্যাসট্যাগে উক্ত বাক্যবন্ধ লিখে নীচে আরও লিখেছেন কথা দিয়েছিলাম, কথা রাখলাম। যেখানেই দৃষ্টিকটু দৃশ্য দেখব, প্রকাশ করব। করলাম। তবে এবার এই কাপল এর দুজনই ছেলে।

এখন প্রশ্ন নীতি পুলিশি দেখাতে গিয়ে কারও ছবি, এক্ষেত্রে  ভিডিও ( তা সে আলিঙ্গনরত হোক বা অন্য কোন দৃশ্য হোক ) বিনা অনুমতিতে বা  গোপনে তোলা যায় কি? এ প্রসঙ্গে উল্লেখ,  কিছুদিন আগেই সুপ্রিম কোর্ট মানুষের ব্যক্তি পরিসরের অধিকারকে মৌলিক অধিকার বলেছেন। সেদিক দিয়ে দেখলে বীরেশ্বর সেনগুপ্ত উক্ত কাপেলের ব্যক্তি পরিসরের অধিকার লঙ্ঘণ করেছেন। প্রকাশ্যে আলিঙ্গণ কোন আইনেই নিষিদ্ধ নয়, তা তারা সমপ্রেমী হোন ( এক্ষেত্রে ভিডিও পোস্টকারীর সেটা দাবি, তা সত্য কিনা যাচাই হয় নি ) বা বিষমপ্রেমী হোন।

<iframe src=”https://www.facebook.com/plugins/video.php?href=https%3A%2F%2Fwww.facebook.com%2FBireswarDasguptaOfficial%2Fvideos%2F1950505245040480%2F&show_text=1&width=261″ width=”261″ height=”849″ style=”border:none;overflow:hidden” scrolling=”no” frameborder=”0″ allowTransparency=”true” allow=”encrypted-media” allowFullScreen=”true”></iframe>

যাইহোক, উক্ত বীরেশ্বর সেনগুপ্তের এই ভিডিও ওনার নিজস্ব ওয়ালে পোস্ট হওয়ার পরে পরেই তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। যেমন সমাজকর্মী বাপ্পাদিত্য মুখোপাধ্যায় প্রতিবাদ জানিয়ে নিজস্ব ফেসবুক ওয়ালে স্পষ্ট লিখেছেন, Bengali Vaidya Samaj (Regn No. 56104) র কর্ণধার শ্রী Bireswar Dasguptaমহাশয় নীচের ভিডিও টি ওই দুই পুরুষের অজান্তে তুলে “গণ লজ্জা” বা public shaming করে “homophobia” র উজ্জ্বল উদাহরণ স্থাপন করলেন ।
যদিও video টি তে সমকামীতা র কোন জোরালো প্রমাণ দেখা যাচ্ছে না কিন্তু পোস্টটিতে এঁদের “যুগল” বা couple বলে দেগে দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে, কুনালরুপ চৌধুরী বীরেশ্বর সেনগুপ্তের ওয়ালে গিয়ে সরাসরি প্রতিবাদ জানিয়ে লিখেছেন, কি বলবো বলোতো ওনাকে। শুধু ওনার কাছে জানতে ইচ্ছে করে দৃষ্টিকটুর ক্রাইটেরিয়া গুলো কি কি?? দুজন মানুষ দুজনকে ছুঁয়ে কোমর ধরে দাঁড়িয়ে আছে সেটা যদি দৃষ্টিকটু মনে হয় ওনার তাহলে বলবো ওনার নিজের দৃষ্টিটাই কটু। তাই একটু সাইকোলজিস্ট দেখাবার পরামর্শ দেব ওনাকে। তাড়াতাড়ি সুস্থ্য মনের হয়ে উঠুন উনি এই আশা করি।

এখন দেখার উক্ত ভিডিও যেভাবে শেয়ার হওয়া শুরু হয়েছে, তা চোখে পড়ার পর সমপ্রেমী-রূপান্তরকামী দের অধিকার আদায়ের জন্য আন্দোলনকারীরা কি ধরনের পদক্ষেপ নেন। কিংবা যে যুগলের ভিডিও তাঁরা এ বিষয়ে কোন পদক্ষেপ নেন কিনা। তবে যাই হোক না কেন, আলিঙ্গণরত দৃশ্যের ভিডিও ফেসবুকে পোস্ট করে যেভাবে বীরেশ্বর সেনগুপ্ত লজ্জার আলিঙ্গণ, দৃষ্টিকটু বলে মন্তব্য করেছেন তা কলকাতা মেট্রোর আগের ঘটনার মতো বিতর্কের দিকেই মোড় নিচ্ছে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here