ইতি তোমার পারিক/ নবম পর্ব // অবকাশে সঞ্জয়

0
34

ইতি তোমার পারিক/ নবম পর্ব // অবকাশে সঞ্জয়

                  নয় 

  •     প্রিয় স্বপ্নপুরুষ,
  •                  তুমি তো অবাক করে দিলে! গুরুমা! খোল! এসব শব্দ শুনলে কার মুখে! কে শেখালো! এ যে আমাদের উল্টি ভাষা! তোমাদের ভদ্রসমাজের কাছ থেকে নিজেদের লুকোতে আমরা এর আশ্রয় নিই। বাউলের যেমন আখড়া, কীর্তনীয়ার কুঞ্জঘর, হিজড়াদের তেমন খোল। আমাদের বারোঘর এক উঠোন। পুরুষের প্রবেশ নিষেধ কিন্তু! তুমি কি করে ঢুকতে পেলে ভেবে অবাক হচ্ছি! তবে কি তুমি পুরুষ নও!
  •               না গো, বর্ষা মায়ের মতো গুরুমা লাখে একটা। আমাদের ভাগ্য অমন নয়! বর্ষা মা বলেছে এনজিওদের সাথে হাতে হাত রেখে লড়াই করবে। আমাদের গুরুমা হলে খোল্‌পি দিয়ে টানডাতো। বুঝলে না তো! একটু বিলা করলাম। হা হা হা। আমাদের গুরুমা কি বলে জানো, এই এনজিওগুলোই আমাদের বাড়াভাতে ছাই দিচ্ছে। এই যে আমরা হিজড়ারা, মানুষ হয়ে জন্মেও আশীর্বাদ করার অধিকারী।  কেন জানো? কারণ আমরা লিঙ্গচিহ্নহীন। যৌনক্ষমতাহীন। সাধারণ মানুষের মতো জৈবিক জীবনযাপন করতে পারি না বা করিও না। এখন যদি যৌনতার অধিকার দাবি করি তাহলে হিজড়াবৃত্তির কি হবে!
  • বুঝলে কিছু। এ এক গোলকধাঁধা। তবে এও ঠিক সাধারণ মানুষ সব জেনে যাচ্ছে। লিঙ্গছেদন করে আমরা যে লিঙ্গহীন হয়েছি, তাও আর অজানা নেই।
  •    তাই খুব ভয় হচ্ছে গো। কি হবে কি জানি! এই তো ক’দিন আগে, খবরের কাগজে দেখলাম হিজড়াদের ট্রাফিক সিগন্যালে দাঁড়িয়ে ভিক্ষাবৃত্তি বন্ধ করার জন্য পুলিশ নাকি উদ্যোগ নেবে। কি সব অর্ডার বেরোবে লালবাজার থেকে। তাই যদি সত্যি হয়, তাহলে তো আমাদের জন্য খুব খারাপ দিন আসছে।
  •   আমাদের ট্রাফিক সিগন্যাল থেকে সরিয়ে দিলে যদি সমাজের উন্নয়নের গতি বাড়ে তো বাড়ুক।
  • আমরা তো সমাজের কেউ নই। হব কি করে! এখন কি আর সেই রামরাজ্য আছে! তাই শ্রীরামচন্দ্র সেদিন যে অধিকার আমাদের দিয়েছিলেন, এখন তা কেড়ে নিতে সবাই উদ্যত।
  • জানি না, কি হবে। সত্যি জানি না।               ইতি
  •                                             তোমার রূপকথা  ( চলবে )

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here