অণুগল্পঃ আজকের তাজা খবর // সুশোভন বন্দ্যোপাধ্যায়

0
86

আজকের তাজা খবর

সুশোভন বন্দ্যোপাধ্যায়

 বুকপকেটে দুমড়ে যাওয়া বাক্সহীন একা সিগারেট আর অযত্নে মরচে পড়া আমাদের সম্পর্কের মধ্যে পার্থক্য ব্যস এতটুকুই যতটুকু না হলে জীবন শেষ ট্রেনে বাড়ি ফেরে না। নানা আশঙ্কা আপনজন ভোগ করে, প্রতিবেশী মন দেয় গুজব রটনায়। আচ্ছা, পরদিন সকালবেলায় লোকাল থানা থেকে ফোন, মহকুমা হাসপাতালের মর্গ থেকে বডি নিয়ে বাড়ি ফিরলেই সব জানা যায়? জীবন চলবে জীবনের পথে, জীবনের মতো। ঘটনাপ্রবাহে কেউ দোষী বা নির্দোষ প্রমানিত হবার আগেই আমরা স্ট্যাম্প দিয়ে দেব যা আমরা শুনতে চাই সেই বয়ানে। লাস্ট লোকালের মাঝের কামরার হঠাৎ দেখা কলেজের সেই সহপাঠিনীর সঙ্গে যে আমার কোনো বোন নেই শুনে রাখি পূর্নিমার আগের দিন রাখি পরিয়েছিল আমার হাতে। উপহার হিসেবে আমার চোখের জল ছাড়া কিছুই পায়নি সে। কোথায় থাকি, কি করি, এখনো বিয়ে করিনি কেন এইসমস্ত প্রশ্নাবলী আমার আগেই সে আমার সামনে রেখেছিল। সমানুপাতিক উত্তর ছিল আমাদের দু’জনেরই। শেষ লোকালের অনভ্যস্ত যাত্রী হিসেবে সে আমাকে পেয়ে নিজেকে ধাতস্থ করার আপ্রাণ চেষ্টা করেছিল। স্টেশন একই হবার সুবাদে আমিই প্রস্তাব দিয়েছিলাম স্ট্যান্ডে রাখা আমার সাইকেলের ক্যারিয়ারে চাপিয়ে তাকে বাড়ি পৌঁছে দেবার। এই পর্যন্ত সব ঠিকই ছিল। পরিকল্পনা ছিল ওর বাড়িতে ওকে নামিয়ে এক কিলোমিটার দুরে আমার বাড়িতে আমার বিধবা মায়ের হাতে কাশির ওষুধ তুলে দিয়ে আজ রাতটা অন্তত নিশ্চিন্তে ঘুমোব। নদী নিকটবর্তী হওয়ায দুই ধারে বালি, মাঝের পিচপিচ রাস্তায় সাইকেল চলছিল আমাদের জীবনের মতোই – ঠোক্কর খেতে খেতে। হঠাৎ একটা বাঁকে দুরন্ত গতিতে ছুটে আসা বালিভর্তি লরির হেডলাইটের আলোয় সারাদিনের ক্লান্তি মাখা দুইচোখ ধাঁধিয়ে গেল। কোনোমতে লরিটিকে পাশ কাটিয়ে নিতেই সামনে চলে এল পুলিশের বোলেরো যা তখন আগের নাকায় টাকা না দিয়ে আসা লরিটিকে ধাওয়া করছিল। পরদিন সকালে খবরের কাগজে জেলায় পাতায় ছাপা হল আমাদের নাম। হেডলাইনে লেখা “প্রেমে সম্মতি না মেলায় যুগলে আত্মঘাতী।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here